সরকার দেবে এবার ৮০,০০০ টাকা, কারা পাবেন? কিভাবে পাবেন? জেনে নিন বিস্তারিত

Hawker Scheme West Bengal

তৃণমূল সরকার গঠিত হওয়ার পর থেকে পশ্চিমবঙ্গের জনসাধারণের জন্য বহু রকমের প্রকল্প চালু করা হয়। ছোট থেকে বড় সবার জন্যই সমানভাবে ভেবে গেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। স্কুলের ছোট ছোট ছাত্রীদের পড়াশোনার জন্য এনেছেন কন্যাশ্রী প্রকল্প। বিবাহযোগ্যা কন্যাদের বাবা-মার যাতে চিন্তা না হয়, তার জন্য এনেছেন রূপশ্রী প্রকল্প। বৃদ্ধ বয়সে অর্থাৎ ৬০ বছর বয়সের পর থেকে যাতে বাকি জীবন নিশ্চিন্তে কাটানো যায় তার জন্য এনেছেন বার্ধক্য ভাতা। এছাড়া পশ্চিমবঙ্গের ঘরে ঘরে মহিলাদের মাসিক ভাতার ব্যবস্থা করেছেন লক্ষী ভান্ডারের মাধ্যমে।

যার ফলে ২০১৪ সালের লোকসভা ভোটে বিপুল পরিমাণ ভোটের জয়যুক্ত লাভ করেন তৃণমূল কংগ্রেস। তবে এত মহান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন হঠাৎ করে রেগে উঠলেন হকারদের প্রতি। একের পর এক সল্টলেক থেকে শুরু করে গড়িয়াহাট, হাতিবাগান, বাঘাযতীনের মত জায়গায় ফুটপাতের পাশে সমস্ত হকারদের দোকান ভেঙে দেওয়া হয়। প্রশাসনের দিকে আঙুল তোলেন যে কেন তারা এভাবে হকারদের বসার সুযোগ করে দিয়েছেন।

আরও পড়ুন: লক্ষ্মীর ভান্ডারের মাত্র ১০০০ টাকা জমিয়ে কোটিপতি হতে চান? পড়ুন এই প্রতিবেদনটি

প্রশাসনের দিকে আঙুল তোলায় প্রশাসন লাঠিচার্জ করে রীতি মতন জোরপূর্বক সমস্ত হকারদের উচ্ছেদ করে। যার ফলে বহু মানুষ এখন জীবিকাহীন হয়ে পড়ে। বহু মানুষের সংসার চালানো কষ্টকর হয়ে দাঁড়ায়। তার কারণ এরকম অনেক ব্যবসায়ীরা ছিলেন যারা ফুটপাতের পাশে ডালা সাজিয়ে উপরে শুধুমাত্র ত্রিপল টানিয়ে বছরের পর বছর ব্যবসা করতেন। তাই এবার সমস্ত হকাররা একজোট হয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানায়।

এই প্রতিবাদে নড়েচড়ে বসেন তিনি। কোন হকারদেরই নিরাশ করতে চান না। তাই হকাররা যাতে নিশ্চিন্তে ব্যবসা করতে পারেন তার জন্য এক নতুন প্রকল্পের ভাবনা ভাবেন। পৌরসভা এলাকায় যারা রাস্তার পাশে এই ধরনের ব্যবসা করেন বা পঞ্চায়েত এলাকা থেকে যে সমস্ত মানুষ এসে পৌরসভা এলাকায় ব্যবসা করছেন তাদের জন্য আনছেন ৮০,০০০ টাকার ঋণের সুবিধা।

আরও পড়ুন: Post Office SCSS Scheme: বিনিয়োগ করুন এই স্কিমে আর বাড়ি বসে মাসে মাসে পান ২০,০০০ টাকা

সরকার থেকে বেঁধে যাওয়া জায়গার মধ্যেই তাদের ব্যবসা করতে হবে এবং ব্যবসার জন্য পাবেন ৮০,০০০ টাকার মূলধন। প্রথমে ১০ হাজার টাকা দেওয়া হবে ঋণ হিসেবে। সেই ১০,০০০ টাকা যদি সময়মতো পরিশোধ করতে পারে তার তখন দেওয়া হবে ২০,০০০ টাকা। এবং এই কুড়ি হাজার টাকা যদি পরিশোধ করতে পারেন তারপরে একসাথে ৫০,০০০ টাকা। যাতে পুজোর আগে সমস্ত ব্যবসায়ীরা আবার তাদের নতুন করে ব্যবসা সাজিয়ে উঠতে পারেন, তার জন্যই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রকল্প হকারদের জন্য।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url