Bhagyalakshmi Yojana: এবার সৌভাগ্য আনুন ভাগ্য ভাগ্যলক্ষ্মী যোজনার মাধ্যমে, করুন আবেদন আজই

Bhagyalakshmi Yojana

কর্ণাটক সরকার ভাগ্যলক্ষ্মী যোজনা স্কিমটি রাজ্যে কন্যা শিশুদের জনসংখ্যা বাড়ানোর কৌশল হিসাবে চালু করেছে। বিশেষ করে দারিদ্র্য সীমার নীচে (বিপিএল) পরিবারগুলির মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে। গ্রামীণ ভারতে, বিপিএল পরিবারগুলির মধ্যে কন্যা সন্তানের জন্মের সাথে জড়িত কিছু বড় আর্থিক চাপ দেখা যায়।

এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য:

১) দারিদ্র্যসীমার নিচে থাকা পরিবারগুলিকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা যাতে তারা তাদের কন্যা শিশুদের জন্য একটি আরামদায়ক জীবন নিশ্চিত করতে পারে। 

২) বিপিএল ক্যাটাগরির পরিবারগুলোকে তাদের সামাজিক ও আর্থিক অবস্থার উন্নতির সাথে সাথে মেয়ে শিশুদের লালন-পালনে উৎসাহিত করুন।

৩) আর্থিকভাবে দুর্বল পরিবারের সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন। 

কর্ণাটকে ভাগ্যলক্ষ্মী স্কিমের জন্য কীভাবে আবেদন করবেন?

যদি আপনি দারিদ্র্যসীমার নিচে থাকেন এবং একটি মেয়ে সন্তান থাকে তবে নিম্নলিখিত পথগুলি অনুসরণ করুন:

ভাগ্যলক্ষ্মী যোজনা কর্ণাটকের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে যান (http://blakshmi.kar.nic.in:8080/First.jsp) অথবা গ্রাম পঞ্চায়েত অফিস/অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্র/এনজিও/অনুমোদিত ব্যাঙ্ক/মিউনিসিপাল কর্পোরেশনগুলিতে যেতে হবে৷ 

ওয়েবসাইট থেকে ফর্মটি ডাউনলোড করুন বা উল্লিখিত জায়গাগুলি একটি থেকে আবেদনপত্র সংগ্রহ করুন।

জন্ম তারিখ এবং পিতামাতার বিবরণ সহ ফর্মটি পূরণ করুন।

আপনার আবেদনের মোডের উপর ভিত্তি করে প্রয়োজনীয় নথি সংযুক্ত করুন বা আপলোড করুন। 

ফর্মটি সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির কাছে জমা দিন, যেমন জেলার মহিলা ও শিশু উন্নয়নের উপ-পরিচালক বা শিশু উন্নয়ন প্রকল্প কর্মকর্তার কাছে।

ভাগ্যলক্ষ্মী প্রকল্পের যোগ্যতার মানদণ্ড:

৩১শে মার্চ, ২০০৬-এর পরে দারিদ্র্য সীমার নীচে (BPL) শ্রেণীভুক্ত পরিবারগুলিতে জন্মগ্রহণকারী মেয়ে শিশুরা এই প্রকল্পের জন্য যোগ্য।

কন্যা শিশুকে তার জন্মের এক বছরের মধ্যে এই স্কিমের সাথে নিবন্ধিত হতে হবে। 

ভাগ্যলক্ষ্মী স্কিমটি একটি বিপিএল পরিবারের মধ্যে সর্বাধিক দুই মেয়ে ভাইবোনের জন্য প্রযোজ্য। এর অর্থ হল একটি পরিবারে যদি দুটির বেশি মেয়ে থাকে তবে তাদের মধ্যে মাত্র দুটি সুবিধা পেতে পারে।

শিশু যেন শিশু শ্রমের অংশ না হয়।

ভারতীয় স্বাস্থ্য বিভাগ কর্তৃক আয়োজিত প্রোগ্রামের মাধ্যমে মেয়ে শিশুকে টিকা বা টিকা দিতে হবে।
 
শিশুটিকে অবশ্যই তার শিক্ষা কমপক্ষে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত সম্পন্ন করতে হবে এবং ১৮ বছর বয়সে পৌঁছানোর আগে বিয়ে করা উচিত নয়।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url